বিসিএস প্রস্তূতিসাধারণ জ্ঞান

৩১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট – ২০১১ || সাধারণ জ্ঞান || প্রশ্ন পত্র ও উত্তর

Rate this post
২০১১ সালে অনুষ্ঠিত ৩১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট পরীক্ষায় সাধারণ জ্ঞান (বাংলাদেশ বিষয়াবলি ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি) প্রশ্নপত্র ও উত্তর। আশা করছি তোমাদের বিসিএস প্রস্তুতির জন্য এটি সহায়ক ভূমিকা রাখবে। 
৩১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট - ২০১১ || সাধারণ জ্ঞান || প্রশ্ন পত্র ও উত্তর
৩১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট – ২০১১ || সাধারণ জ্ঞান || প্রশ্ন পত্র ও উত্তর


৩১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট – ২০১১

১. বাংলাদেশের লোকশিল্প জাদুঘর কোথায় অবস্থিত?
ক) ময়নামতি
খ) সোনারগাঁ
গ) ঢাকা
ঘ) পাহাড়পুর
উত্তরঃ সোনারগাঁ

২. জাতিসংঘের জনসংখ্যা সংক্রান্ত রিপোর্ট ১৯৯৪ অনুযায়ী জনসংখ্যার দিক দিয়ে বাংলাদেশের স্থান কত?
ক) সপ্তম
খ) নবম
গ) একাদশ
ঘ) ত্রয়োদশ
উত্তরঃ নবম

৩. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কবে প্রতিষ্ঠিত হয়?
ক) ১৯২১
খ) ১৯২৫
গ) ১৯২৯
ঘ) ১৯৩৩
উত্তরঃ ১৯২১

৪. বাংলাদেশের সংবিধানের কত অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন গঠিত হয়?
ক) ১৩৭
খ) ১৩৮
গ) ১৪৭
ঘ) ১৫০
উত্তরঃ ১৩৭

৫. কে বাংলার সাল গণনা শুরু করেন?
ক) লক্ষ্মণ সেন
খ) ইলিয়াস শাহ্‌
গ) বিজয় সেন
ঘ) আকবর
উত্তরঃ আকবর

৬. গম্ভীরা বাংলাদেশের কোন অঞ্চলের লোকসঙ্গীত?
ক) চট্টগ্রাম
খ) রাঙামাটি
গ) চাঁপাইনবাবগঞ্জ
ঘ) জামালপুর
উত্তরঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ

৭. বাংলাদেশে কয়টি উপজাতীয় প্রতিষ্ঠান আছে?
ক) ৮ টি
খ) ৫ টি
গ) ৪ টি
ঘ) ৩ টি
উত্তরঃ ৮ টি

৮. রেলপথে ঢাকা থেকে খুলনার দূরত্ব কত?
ক) ৬২৭ কি.মি.
খ) ৫২৯ কি.মি.
গ) ৪১২ কি.মি.
ঘ) ৩০৭ কি.মি.
উত্তরঃ ৪১২ কি.মি.

৯. নিম্নলিখিত কোন দেশ থেকে বাংলাদেশ বর্তমানে সবচেয়ে বেশি সাহায্য পায়?
ক) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
খ) জাপান
গ) দক্ষিণ কোরিয়া
ঘ) জার্মানি
উত্তরঃ জাপান

১০. বাংলাদেশ কোন সাল থেকে শান্তিরক্ষা বাহিনীতে কাজ করছে?
ক) ১৯৮৮
খ) ১৯৮৫
গ) ১৯৭৫
ঘ) ১৯৭৯
উত্তরঃ ১৯৮৮

১১. হাজার হ্রদের দেশ কোনটি?
ক) নরওয়ে
খ) ফিনল্যান্ড
গ) ইন্দোনেশিয়া
ঘ) জাপান
উত্তরঃ ফিনল্যান্ড

১২. পূর্বে কোন দেশটি শ্যামদেশ নামে পরিচিত ছিল?
ক) মালয়েশিয়া
খ) ইন্দোনেশিয়া
গ) থাইল্যান্ড
ঘ) মায়ানমার
উত্তরঃ থাইল্যান্ড

১৩. হারারে’র পূর্ব নাম কি?
ক) সলসব্যারী
খ) রোডেসিয়া
গ) জিবুতি
ঘ) জায়ারে
উত্তরঃ সলসব্যারী

১৪. কবে ফরাসী বিপ্লব সংঘটিত হয়?
ক) ১৭৮৯
খ) ১৭৯১
গ) ১৭৯৫
ঘ) ১৮০০
উত্তরঃ ১৭৮৯

১৫. কার্ল মার্কস কোন দেশে মৃত্যুবরণ করেন?
ক) জার্মানি
খ) ফ্রান্স
গ) যুক্তরাজ্য
ঘ) রাশিয়া
উত্তরঃ যুক্তরাজ্য

১৬. আফগানিস্তানের শেষ বাদশাহ কে ছিলেন?
ক) দাউদ খাঁ
খ) জহির শাহ
গ) নাদির শাহ
ঘ) নজীবুল্লাহ
উত্তরঃ জহির শাহ

১৭. স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে সর্বপ্রথম কোন দেশ স্বীকৃতি দান করে?
ক) ইরাক
খ) ইরান
গ) সৌদি আরব
ঘ) আলজেরিয়া
উত্তরঃ আলজেরিয়া

১৮. ‘লাইন অব কন্ট্রোল’ কোন দুটি রাষ্ট্রের সীমান্তবর্তী রেখা চিহ্নিত করে?
ক) ইসরাইল ও জর্ডান
খ) ভারত ও পাকিস্তান
গ) চীন ও তাইওয়ান
ঘ) দক্ষিণ কোরিয়া ও উত্তর কোরিয়া
উত্তরঃ ভারত ও পাকিস্তান

১৯. মধ্য আমেরিকার কোন দেশে স্থায়ী সেনাবাহিনী নেই?
ক) কলাম্বিয়া
খ) নিকারাগুয়া
গ) কোস্টারিকা
ঘ) এল সালভাদর
উত্তরঃ কোস্টারিকা

২০. পৃথিবীর সর্বাপেক্ষা বেশি গম উৎপাদনকারী দেশ কোনটি?
ক) অস্ট্রেলিয়া
খ) কানাডা
গ) যুক্তরাষ্ট্র
ঘ) চীন
উত্তরঃ চীন


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Related Articles

ইসলাম ও জীবন

রক্ত সঞ্চালন ও দুগ্ধ উৎপাদন নিয়ে আল-কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান কী বলে?

Rate this post

মুসলিম বিজ্ঞানী ইবনে নাফিস (Ibn Nafees) রক্ত সঞ্চালন সম্পর্কীয় তথ্য বর্ণনা দেয়ার ৬০০ বৎসর পূর্বে এবং উইলিয়াম হার্ভে (Willium Herwey) এই রক্ত সঞ্চালনের জ্ঞান পশ্চিমা জগতে ছড়িয়ে দেয়ার ১০০০ বছর পূর্বে কুরআন অবতীর্ণ হয়। প্রায় ১৩০০ বছর পূর্বে এটা জানা ছিল যে, অন্ত্রে কি ঘটে এবং বিপাকীয় প্রক্রিয়ায় খাদ্যের বিভিন্ন উপাদান শশাষিত হয়ে দেহের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গের পুষ্টি সাধন করে। কুরআনের একটি আয়াত দুধের উপাদানগুলাের উৎসের বর্ণনা দিয়েছে যা উল্লেখিত অভিমতের সাথে সংগতিপূর্ণ। উপরােক্ত ধারণা সম্পর্কে আল-কুরআনের আয়াত বুঝতে হলে এটা জানা প্রয়ােজন যে, অন্ত্রে রাসায়নিক বিক্রিয়া সংঘটিত হয়, ফলে খাদ্যদ্রব্য বিশ্লেষিত হয়ে বিভিন্ন উপাদানে বিভক্ত হয়। এই উপাদানগুলাে একটি জটিল প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে তাদের প্রকৃতি অনুযায়ী সরাসরি কখনও কখনও লিভারের পথ পরিক্রমায় রক্ত প্রবাহে মিশে। রক্ত ঐগুলাে বহন করে নিয়ে যায় দেহের সকল অঙ্গপ্রতঙ্গে যাদের মধ্যে আছে দুগ্ধ উৎপাদনকারী গ্রন্থি। 

রক্ত সঞ্চালন ও দুগ্ধ উৎপাদন নিয়ে আল-কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান কী বলে?
ছবি সূত্রঃ iStockphoto

সহজ কথায়, অন্ত্রে বিদ্যমান বস্তুসামগ্রীর মধ্যে বিশেষ বিশেষ উপাদান অন্ত্ৰপ্রাচীরের নালীতে প্রবেশ করে এবং এইসব উপাদানগুলাে রক্তের দ্বারা বাহিত হয়ে বিভিন্ন অঙ্গপ্রতঙ্গে পৌঁছায়। যদি আমরা কুরআনের নিম্নলিখিত আয়াতটির মর্মার্থ বুঝতে চাই তাহলে, উল্লেখিত ধারণাটির যথার্থ মূল্যায়ন করা যায়।

নিশ্চয়ই তােমাদের জন্য গবাদি পশুর মধ্যে শিক্ষা রয়েছে। আমি তাদের পেটের গােবর ও রক্তের মধ্য হতে তােমাদেরকে পান করাই বিশুদ্ধ দুগ্ধ যা তাদের জন্য তৃপ্তিদায়ক, যারা পান করে।” (আল-কুরআন-১৬ : ৬৬)

আর অবশ্যই তােমাদের জন্য গৃহপালিত চতুষ্পদ জন্তুর মধ্যে শিক্ষণীয় বিষয় রয়েছে, তােমাদেরকে পান করাই এদের উদরস্থিত বস্তু হতে একটি জিনিস (দুধ) এবং তাদের মধ্যে তােমাদের জন্য রয়েছে প্রচুর উপকারিতা আর তােমরা তাদের কতককে খাও।” (আল-কুরআন-২৩: ২১) 

১৪০০ বছর পূর্বে কুরআনে দুগ্ধ উৎপাদনের বর্ণনাটি বিস্ময়করভাবে হুবহু একই যা আধুনিক শরীর তত্ত্ববিদ্যা সম্প্রতি আবিষ্কার করেছে। 


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Related Articles

স্বাস্থ্য কথা

মেনথল সিগারেট অন্য সিগারেট থেকে বেশি মারাত্বক! কিন্তু কেন?

Rate this post

 সিগারেটের মেন্থলের প্রভাবে মুখ, গলা এবং ফুসফুসের ধোঁয়া ধরে রাখার প্রবণতা বেড়ে যায়। আর এর ফলে হৃদরোগ হয়।

সম্প্রতি, ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) মেন্থল এবং অন্যান্য স্বাদযুক্ত সিগারেটের উপর নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব করেছে। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে জনগণের মতামত চেয়েছে সংগঠনটি। ইদানীং মানুষ কমলা, লবঙ্গ, দারুচিনি এবং ভ্যানিলার মতো বিভিন্ন স্বাদের সিগারেটের প্রতি আরও বেশি আগ্রহী হয়ে উঠেছে। এফডিএ-র একটি সমীক্ষা অনুসারে, আফ্রিকান আমেরিকানদের মধ্যে মেন্থল সিগারেটের ব্যবহার বেশি। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এই স্বাদের সিগারেটের চাহিদা রয়েছে।

মেনথল সিগারেট অন্য সিগারেট থেকে বেশি মারাত্বক
অন্য সিগারেটের তুলনায় মেনথল সিগারেট ক্ষতিকর বেশি।

মেনথল একটি বিশেষ রাসায়নিক যা সিগারেটের ফিল্টারে ব্যবহৃত হয়। এটি ধোঁয়ার সাথে মুখ, গলা এবং ফুসফুসে গিয়ে পৌঁছায় এবং ঠান্ডা অনুভূত হয়। আর এটাই অনেক সমস্যার কারণ

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের একটি গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে, অল্পবয়সী বা যারা সবেমাত্র ধূমপান শুরু করেছে তাদের মেন্থল সিগারেট খাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, ১৮ বছরের কম বয়সী যারা ধূমপানে আসক্ত তাদের মধ্যে মেনথল সিগারেটের স্বাদও আসক্তির একটি প্রধান কারণ।

মেনথল  জাতীয় সিগারেট এর ধোঁয়া মুখ, গলা দিয়ে ফুসফুসে যায় এবং ঠান্ডা অনুভূত হয় বলে ধোঁয়া বেশিক্ষণ ফুসফুসে অবস্থান করে। এতে কিছুটা আরাম পাওয়া যায়। তবে বড় ক্ষতিটা হয় একারণেই। ধোঁয়া বেশিক্ষণ ভেতরে থাকলে শরীর বেশি নিকোটিন শোষণ করে। এটি রক্তচাপ বাড়ায়।

চিকিৎসকদের মতে, নিয়মিত সিগারেটের তুলনায় মেন্থল সিগারেট শুধু উচ্চ রক্তচাপ বা হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় না, ক্যান্সারের মতো রোগের ঝুঁকিও বাড়ায়।

এফডিএ বিশ্বাস করে যে মেন্থল-টাইপ সিগারেটের উপর নিষেধাজ্ঞা তরুণদের মধ্যে ধূমপান কমিয়ে দেবে। শুধু তাই নয়, তামাক সেবনে মৃত্যুর সংখ্যা কমানোর সঙ্গে সঙ্গে সাস্থ্য ঝুঁকি কমানোও সম্ভব হবে।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Related Articles

স্বাস্থ্য কথা

অতিরিক্ত সূর্যের তাপ অন্ধত্বের ঝুঁকি বাড়ায়! জেনে নিন বাঁচার উপায়।

Rate this post
অতিরিক্ত সূর্যের তাপ অন্ধত্বের ঝুঁকি বাড়ায়! জেনে নিন বাঁচার উপায়।
অতিরিক্ত তাপ চোখের মারাত্মক ক্ষতি করে। সূর্যের দীর্ঘক্ষণ এক্সপোজার ছানি, এমনকি রেটিনার ক্ষতির ঝুঁকি বাড়ায়।

ছানি পড়ার অন্যতম একটি কারণ হল দীর্ঘ ক্ষণ কড়া রোদে থাকা। দীর্ঘ ক্ষণ কড়া রোদ থাকলে রেটিনার ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও থাকে।

তীব্র গরমে নগরবাসীর নাজেহাল অবস্থা। ঘড়ির কাঁটা ৮টা বেজে যাওয়ার আগেই উদীয়মান সূর্যের আলোয় চোখের বেহাল অবস্থা। এই গরমে শরীরের পাশাপাশি চোখেরও যত্ন নিতে হবে। চক্ষু বিশেষজ্ঞদের মতে, অতিরিক্ত তাপ চোখের মারাত্মক ক্ষতি করে। সূর্যের দীর্ঘক্ষণ এক্সপোজার ছানি, এমনকি রেটিনার ক্ষতির ঝুঁকি বাড়ায়।

দীর্ঘক্ষণ রোদে থাকার পর অনেকের চোখ জ্বালা করে, চোখ লাল হয়ে যায় এবং চোখের পাতা ফুলে যায়। প্রখর রোদের কারণে অনেকে ভাইরাস ও ব্যাক্টেরিয়াল কনজাংটিভাইটিসেও আক্রান্ত হন। এসব সমস্যা ছাড়াও চোখের পাতার গোড়ায় কিছু তেল গ্রন্থি রয়েছে। এই গ্রন্থির সংক্রমণের কারণেও এনজাইনা সংক্রান্ত সমস্যা হয়। গরমের দিনে চোখের যত্ন না নিলে অন্ধত্ব ও ক্যান্সারের ঝুঁকিও থাকে।

রোদে চোখের যত্ন নিবেন যেভাবে

১। কন্টাক্ট লেন্স পরার সময় বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত। লেন্স পরার পূর্বে ভালো করে হাত পরিষ্কার করার অভ্যাস করুন। লেন্স পরিষ্কার না থাকলে সূর্যের তাপে এবং দূষণের জেরে চোখে সংক্রমণের আরও বেড়ে যায়।

অতিরিক্ত সূর্যের তাপ অন্ধত্বের ঝুঁকি বাড়ায়! জেনে নিন বাঁচার উপায়।
UVA এবং UVB উভয় রশ্মি থেকে চোখকে রক্ষা করে এমন সানগ্লাস ব্যবহার করা ভাল।

২। সানগ্লাস দিয়ে চোখ ঢেকে রাখা শুধু ফ্যাশনেবল নয়, এই গরমে এটি খুবই প্রয়োজনীয়। তবে যে কোনো সানগ্লাস ব্যবহার করা উচিত নয়। UVA এবং UVB উভয় রশ্মি থেকে চোখকে রক্ষা করে এমন সানগ্লাস ব্যবহার করা ভাল।

৩। যদি আপনার কন্টাক্ট লেন্স UV রশ্মি থেকে সুরক্ষা প্রদান করে, তাহলে আপনাকে সানগ্লাসও পরা উচিত। শুধুমাত্র সানগ্লাস ব্যবহার করলেই পুরো চোখ কড়া রোদের হাত থেকে রক্ষা পাবে।

৪। গরমে শরীরে ডিহাইড্রেশন হলে শরীর যেমন অসুস্থ হতে পারে, তেমনি চোখের স্বাস্থ্যও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। চোখ অতিরিক্ত শুষ্ক হয়ে গেলে চোখ খিঁচুনি, চোখ লাল হয়ে যাওয়া ইত্যাদি সমস্যা দেখা যায়। তাই কোনোভাবেই গরমে শরীরকে পানিশূন্য করা যাবে না।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Related Articles

Uncategorized

বৈদ্যুতিক বাল্ব কীভাবে আলো ছড়ায় ?

Rate this post

একটি বৈদ্যুতিক বাল্বে দুইটি মোটা তার একটি বায়ুশূন্য বা নিষ্ক্রিয় গ্যাসপূর্ণ বাল্বের বায়ু নিরুদ্ধ মুখের মধ্য দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করানো থাকে ।

বাল্বের ভেতরে তারের দুই প্রান্তর সাথে সরু টাংস্টেনের তারের কুণ্ডলী সংযুক্ত থাকে ।একে ফিলামেন্ট বলে ।এ বাল্বকে বিদ্যুৎ উৎসের সাথে সংযোগ করলে প্রচুর তাপ উৎপাদন করে এবং বাল্বের এই ফিলামেন্ট প্রজ্বলিত হয়ে আলো বিকিরণ করে ।  


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

One Comment

মন্তব্য করুন

Uncategorized

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম দ্রুত শেষ করা হবে – দীপু মনি

Rate this post

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম দ্রুত শেষ করা হবে - দীপু মনি
ফাইল ছবি –  শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি


অনলাইন ডেস্ক – ২৭ আগস্ট,২০২১

গত মার্চে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল মন্ত্রণালয়। কিন্তু ডেল্ট ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণে বাড়ার কারণে এ সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হাঁটে সরকার। ফলে দফায় দফায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, আগামী এক মাসের মধ্যে যত দ্রুত সম্ভব চেষ্টা করছি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের (যারা ১৮ বছরের বেশি) টিকা দেওয়া শেষ করা যায়। তিনি আরও জানান, আমরা আশা করছি অক্টোবরের মাঝামাঝি বা পরে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলে দিতে পারব।

আজ (২৭ আগস্ট, শুক্রবার) বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (বাউবি) গাজীপুর ক্যাম্পাসে মিডিয়া সেন্টারে ‘বঙ্গমাতার জীবনাদর্শ, অনুপ্রেরণা ও আত্মত্যাগ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী আরও বলেন, করোনা সংক্রমন ৫ শতাংশের  বা এর নিচে হলে বিজ্ঞানসম্মতভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া যায়। কিন্তু আমাদের দেশ ঘনবসতিপূর্ণ এবং অনেক শিক্ষার্থী স্বল্পপরিসরে অনেকের সঙ্গেই বসবাস করে। দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের মানসিক ও শারীরিক অবস্থা ঠিক নেই। 

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী কথা সাহিত্যিক সেলিনা হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শেখ রাসেল চত্বরে ঔষধি গাছের চারা রোপণ করেন।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Uncategorized

এইচএসসির ফরম পূরণ স্থগিত, তারিখ পরে জানানো হবে।

Rate this post

 চলিত বছরের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের কাজ স্থগিত করা হয়েছে। ২৯ জুন শুরু হয়ে আগামী ১১ জুলাই পর্যন্ত এই ফরম পূরণের কাজ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আজ রোববার ঢাকা শিক্ষা বোর্ড জানায়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হওয়ায় ফরম পূরণের কাজ স্থগিত করা হলো। পরিস্থিতি বিবেচনা করে তারিখ পরে জানানো হবে।

এইচএসসির ফরম পূরণ ২৯ জুন শুরু কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়েছে। নতুন তারিখ পরে জানানো হবে।

এইচএসসির ফরম পূরণ স্থগিত, তারিখ পরে জানানো হবে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চিঠিতে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক পর্যায়ে চলে যাওয়ায় ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে কার্যক্রম স্থগিত করা হলো। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পরে এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ কার্যক্রমের তারিখ ঘোষণা করা হবে।

গত শুক্রবার এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের তারিখ ঘোষণা করে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। ২৯ জুন থেকে শুরু হয়ে ১১ জুলাই পর্যন্ত অনলাইনে শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণ করা হবে জানানো হয়েছিল।

এর আগে ক্লাস হয়নি, পরীক্ষা কবে হবে, নাকি হবে না তা ঠিক না হওয়ার পরও পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণের কারণ জানতে চাইলে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এস এম আমিরুল ইসলাম  বলেছিলেন, তাঁরা পরীক্ষা নেওয়ার জন্য সব প্রস্তুতি নিয়ে রাখছেন। প্রশ্নপত্র তৈরির জন্য মডারেশনের কাজও চলছে। মোট কথা তাঁরা পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে রাখছেন, পরে পরিস্থিতি অনুযায়ী সিদ্ধান্ত হবে।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

One Comment

মন্তব্য করুন

Uncategorized

কোনটি কোন রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত তা দেখাও

Rate this post

 

(খ) কোনটি কোন রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত তা দেখাও:

১। আমগাছ

২। আমাশয়ের জীবাণু

৩। দোয়েল

৪। রাইজোবিয়াম

৫। মিউকর

৬। সাইকাস

৭। শামুক

৮। অ্যাগারিকাস

৯। নিউমোকক্কাস

১০। স্পাইরোগাইরা

উত্তর


জীব/উদ্ভিদের নামরাজ্যের নাম
আমগাছরাজ্য ৪ঃ প্লানটি (Plantae)
আমাশয়ের জীবাণুরাজ্য ১ঃ মনেরা (Monera)
দোয়েলরাজ্য ৫ঃ অ্যানিমেলিয়া (Animalia)
রাইজোবিয়ামরাজ্য ১ঃ মনেরা (Monera)
মিউকররাজ্য ৩ঃ ফানজাই (Fungi)
সাইকাসরাজ্য ৪ঃ প্লানটি (Plantae)
শামুকরাজ্য ৫ঃ অ্যানিমেলিয়া (Animalia)
অ্যাগারিকাসরাজ্য ৩ঃ ফানজাই (Fungi)
নিউমোকক্কাসরাজ্য ১ঃ মনেরা (Monera)
স্পাইরোগাইরারাজ্য ৪ঃ প্লানটি (Plantae)

 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Uncategorized

কিভাবে সেচের পানি অপচয় হয়?

Rate this post
কিভাবে সেচের পানি অপচয় হয়?
কিভাবে সেচের পানি অপচয় হয়ঃ
পানি সেচ কৃষি কাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটির ঘাটতি হলে ফসল উৎপাদন সম্ভব নয়। কিন্তু সেচে পানি অপচয় হয়। বিভিন্নভাবে সেচে পানি অপচয় হতে পারে। যেমনঃ
ক) বাষ্পীভবন
খ) পানির অনুস্রবন
গ) পানি চুয়ানো।

 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

4 Comments

মন্তব্য করুন

Back to top button