স্বাস্থ্য কথা

শিশুদের ডায়াবেটিস থেকে দূরে রাখতে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত?

Rate this post

যদি পরিবারের কোনো সদস্যও ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন, তবে পরিবারের ছোটদের জন্য অতিরিক্ত যত্ন নেওয়া উচিত।

পরিবারের কোনো সদস্যের ডায়াবেটিস থাকলে পরিবারের ছোট সদস্যদের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি থাকে। যদি পরিবারের কোনো সদস্যও ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন, তবে পরিবারের ছোটদের জন্য অতিরিক্ত যত্ন নেওয়া উচিত।

শিশুদের ডায়াবেটিস থেকে দূরে রাখতে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত?
শিশুদের ডায়াবেটিস থেকে দূরে রাখতে প্রতিদিন অন্তত এক ঘণ্টা দৌড়াতে হবে। ছবিঃ iStockphoto

চিকিৎসকদের মতে, টাইপ-১ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শিশুরা ঘন ঘন প্রস্রাব, অত্যধিক ক্ষুধা, তৃষ্ণা এবং যে কোনো ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকে। যা পড়ালেখা, খেলাধুলা ও অন্যান্য কার্যক্রমকে প্রভাবিত করে। এমনকী, সর্দি-কাশির সমস্যাও বাড়ে। ঋতু পরিবর্তনের সময় ভোগান্তির ঝুঁকিও রয়েছে। বর্ষা বা শীত শুরু হওয়ার আগেই জ্বর, কাশি, গলা ব্যথার মতো সমস্যা দেখা দেয়। বারবার সর্দি লাগার ফলে ফুসফুসের দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা হতে পারে। খাদ্যতালিকাগত এবং বংশগত সমস্যাগুলি প্রধানত টাইপ 1 ডায়াবেটিসের কারণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়।

শহুরে খাবারে কার্বোহাইড্রেটের তালিকা দীর্ঘ। শিশুদের স্ন্যাক্সে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, অতিরিক্ত পরিমাণে চকোলেট, মিষ্টি খাবার দেখা যায়। তাই রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকিও থাকে। তাছাড়া শহুরে শিশু-কিশোরদের অধিকাংশই খেলাধুলায় অভ্যস্ত নয়। তারা দিনের বেশিরভাগ সময় বসে কাজ করে। তারা ভিডিও গেম খেলে বা ইন্টারনেটে অবসর সময় কাটায়। এই অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

ডায়াবিটিস থেকে কী ভাবে দূরে রাখবেন শিশুকে?

১) এই আধুনিক জীবনে, শিশুদের খেলার মাঠে খেলার চেয়ে ভিডিও গেমের সময় কাটায় বেশী। যা শিশুর সঠিক বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করে। তাই প্রতিদিন অন্তত এক ঘণ্টা দৌড়াতে হবে। 

২) যদি শিশুর ওজন তার বয়সের জন্য বেশি হয় তবে প্রথম পদক্ষেপটি ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে শিশুর উপযোগী ডায়েট চার্ট তৈরি করতে পারেন।

৩) বাচ্চারা সবসময় চকোলেট, কেক এইসকল  মিষ্টি খেতে পছন্দ করে। বাড়ির বড়দের খেয়াল রাখতে হবে শিশু যেন বেশি মিষ্টি খাবার না খায়।

শিশুদের ডায়াবেটিস থেকে দূরে রাখতে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত?
অতিরিক্ত চকোলেট খাওয়া থেকে শিশুদের দূরে রাখুন। ছবিঃ iStockphoto

৪) সকালের নাস্তায় বাচ্চাদের পুষ্টিকর খাবার দিন। ফলমূল খেতে দিন।

৫) শিশুর স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে শিশুকে খাওয়ানোর চেষ্টা করুন। সময়মতো খাবার খাওয়া শিশুকে হজমের সমস্যা থেকে দূরে রাখবে।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Related Articles

Back to top button