Uncategorized

বাংলাদেশের মানুষকে মাছে ভাতে বাঙালি বলা হয় কেন?

Rate this post

 বাংলাদেশের মানুষকে মাছে ভাতে বাঙালি বলা হয় কেন?

মাছে ভাতে বাঙালি কথাটি প্রকৃত অর্থেই সঠিক, মাছ ও ভাতের সঙ্গে বাঙালির সম্পর্ক বহুকালের।আদিকাল থেকেই মাছ খেতো বাঙালি। মাছের সঙ্গে ভাতের সম্পর্ক নিবিড় হওয়ার কারণটি হলো বাঙালির মুখ্য খাদ্য ভাত এবং দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় পছন্দের পদ মাছ। আরেকটি প্রধান কারণ হলো বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ, ধান ও মাছ দুইই সহজলভ্য। আর খাদ্য উপাদানের সহজলভ্যতা কোনো অঞ্চলের খাদ্যসংস্কৃতির মূল ভিত তৈরি করে। যে অঞ্চলে খাবারের যে উপাদান সহজলভ্য, সে অঞ্চলে সে উপাদানকে কেন্দ্র করেই গড়ে ওঠে সেই অঞ্চলের প্রধান খাদ্যের পরম্পরা। এর ফলেই ভাত ও মাছ কালক্রমে বাঙালির প্রধান খাদ্য হয়ে ওঠে। সেজন্যই সমগ্র বাঙালি জাতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে মাছে ভাতে বাঙালি কথাটি।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Uncategorized

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান প্রবর্তিত হয় কবে?

Rate this post

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান প্রবর্তিত হয় কবে?
উত্তরঃ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান প্রবর্তিত হয় ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭২

স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন হল গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান। বাংলাদেশের সংবিধান লিখিত। এই সংবিধান ১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ কর্তৃক গৃহীত হয় এবং একই বছরের ১৬ ডিসেম্বর অর্থাৎ বাংলাদেশের বিজয় দিবসের প্রথম বার্ষিকীতে কার্যকর হয়।


 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

সারমর্ম

সারমর্মঃ একদা ছিল না জুতা চরণ যুগলে, দহিল হৃদয় মম সেই ক্ষোভানলে।

1/5 - (1 vote)
 একদা ছিল না জুতা চরণ যুগলে,
দহিল হৃদয় মম সেই ক্ষোভানলে।
ধীরে ধীরে চুপি চুপি দুঃখাকুল মনে
গেলাম ভজনালয়ে ভজন কারণে। 
সেথা দেখি একজন পদ নাহি তার,
অমনি জুতার খেদ ঘুচিল আমার।
পরের দুঃখের কথা করিলে চিন্তন,
আপনার মনে দুঃখ থাকে কতক্ষণ?

সারমর্মঃ পার্থিব জীবনে মানুষের অভাব ও চাহিদা অফুরন্ত। একটি অভাব পূরণ করতেই আরেকটি সামনে এসে হাজির হয়। এজন্য মানুষ হতাশ হয় আর এ নিয়ে খুব দুঃখ করে। কিন্তু একবারও ভাবে না আমার যা আছে আরেক জনের হয়তো তাও নেই। যারা এ আপন ভাবনায় অপ্রাপ্তির এ দুঃখবোধ ঘুচাতে পারে তারা অনাবিল সুখ-শান্তি অনুভব করে। প্রকৃতপক্ষে এরাই সুখী। এজন্য নিজের যা আছে তা নিয়ে তুষ্ট থাকলে অন্যের দুঃখ-কষ্টের কথা চিন্তা করা যায়।

 এই রকম আরও তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন। এর পাশাপাশি গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন। 

Rimon

This is RIMON Proud owner of this blog. An employee by profession but proud to introduce myself as a blogger. I like to write on the blog. Moreover, I've a lot of interest in web design. I want to see myself as a successful blogger and SEO expert.

মন্তব্য করুন

Related Articles

Back to top button