ভাবসম্প্রসারণ : যে জাতি জীবনহারা অচল অসাড়

    যে জাতি জীবনহারা অচল অসাড় পদে পদে বাধে তারে জীর্ণ লােকাচার ভাবসম্প্রসারণ

    যে জাতি জীবনহারা অচল অসাড় ,
    পদে পদে বাধে তারে জীর্ণ লােকাচার।

    ভাবসম্প্রসারণ for class 6, 7, 8, 9, 10, 11 JSC SSC HSC

    মূলভাব

    যেকোনাে জাতির উন্নতির পিছনে রয়েছে এর নিজস্ব চেতনা ও আদর্শ।আদর্শচ্যুত জাতি কখনাে লক্ষ্যে পৌছতে পারে না, বরং পদে পদে নানা বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়।

    সম্প্রসারিত ভাব

    মানবজীবন প্রবহমান নদীর মতােই গতিশীল। যখন বিভিন্ন রকম সংস্কার, আচার, রীতিনীতি তাকে ঘিরে ধরে। তখন জীবন প্রবাহ ও সমাজ সভ্যতা মুখ থুবড়ে পড়ে। জীবন চলার পথে পিছনে ফিরে তাকানাের অবকাশ নেই। পিছনে ফিরে তাকালেই নানারকম সংস্কাররূপ বাধা জীবনে গতিকে রুদ্ধ করে দিতে পারে। একজন সচেতন নাগরিক বা ব্যক্তিকে এসব জীর্ণ বাধাকে অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যেতে হয়। মানুষের জীবনের মতাে জাতিও গতিশীল। সময়ের পরিবর্তনের সাথে জাতীয় জীবনের বিকাশ ঘটে। কোনাে কারণে যদি কোনাে জাতি চলার ছন্দ হারিয়ে ফেলে, তাহলে সে জাতি তার স্বাভাবিক বিকাশ হারিয়ে পিছনেই পড়ে থাকে।

    বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। উন্নয়নশীল দেশগুলােতে অশিক্ষা, কুসংস্কার, ধর্মীয় গোঁড়ামি সবচেয়ে বেশি। এজন্য উন্নয়নশীল দেশগুলাে আধুনিক সভ্যতার আলাে থেকে বঞ্চিত হতে থাকে। বাংলাদেশে জনসংখ্যা সমস্যা একটি জাতীয় সমস্যা। জন্মনিয়ন্ত্রণই এ সমস্যা সমাধানের একমাত্র উপায়। কিন্তু অধিকাংশ নারী-পুরুষ জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করাকে পাপ বলে মনে করে। তারা মনে করে সৃষ্টি করেছেন যিনি রিজিক বা আহারও দিবেন তিনি। তাই তারা জন্মনিয়ন্ত্রণের আদৌ তােয়াক্কা না করে অধিকসংখ্যক সন্তান জন্ম দিয়ে থাকে। এতে নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়। মা ও সন্তান উভয়ের স্বাস্থ্য হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়ে। সাথে সাথে পরিবারের সবাই মৌলিক সামাজিক চাহিদা থেকে বঞ্চিত হয় এবং এরা এক সময় জাতির জন্য বােঝা হয়ে দাঁড়ায়। যা হােক, জন্মনিয়ন্ত্রণ না করার মতাে বিভিন্ন লােকাচার বা জীর্ণতা জাতীয় জীবনের গতিকে অসার ও অচল করে তােলে। তখন জাতির ভাগ্যাকাশে দুর্যোগ নেমে আসে। জাতির হাতে-পায়ে পড়ে নানারকম বিধিনিষেধের - বেড়ি। নিষ্ঠুরভাবে পরাধীনতার শিকলে আবদ্ধ হতে হয় জাতিকে। তখন এ শিকল মুক্ত করা খুবই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে।

    মন্তব্য

    দেশের নাগরিকের মধ্যে প্রকৃত দেশপ্রেম থাকলে কোনাে ধরনের জড়তা বা কুসংস্কার তাদেরকে গ্রাস করতে পারে না। প্রাণপণ প্রচেষ্টা ও স্বকীয়তার অনুশীলনের মধ্য দিয়ে সেই জাতি অনায়াসেই পৌঁছে যেতে পারে উন্নতির শীর্ষে।


    বিকল্প আরও একটি দেওয়া হল

    যে জাতি জীবন হারা অচল অসাড় এ পদে পদে বাঁধে তারে জীর্ণ লােকাচার


    মূলভাব


    কোনাে জাতির উন্নতির মূল সােপান হচ্ছে তার চেতনা ও আদর্শ। আদর্শচ্যুত জাতি কখনাে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌছাতে পারে না, বরং নানা বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়।

    সম্প্রসারিত ভাব
    গতিই জীবন আর জীবনহীনতা বা স্থিতিতে মৃত্যু। এ বিশ্বজগতে যতদিন গতি আছে, ততদিন জীবন আছে। যেদিন এ গতি স্তব্ধ হয়ে যাবে সেই দিনই আসবে ধ্বংস। নদী তার আপন ধারায় প্রতিনিয়ত বয়ে চলে। সে কোনাে বাধা মানে না, কোনাে বিপত্তি এসে তার পথ রােধ করতে পারে না। কিন্তু যদি প্রাকৃতিক কোনাে কারণে ওই নদীর অবিরত জলধারা বন্ধ হয়ে যায় তবে নদীর বুকে জমে ওঠে অজস্র জঞ্জাল তূপ। তার গতি তাে রুদ্ধ হয়ই, তার শ্রী সৌন্দর্যও নষ্ট হয়ে যায়। মানবসমাজও তদ্রুপ নদীর মতাে আপন গতিবেগে উৎস থেকে মােহনার দিকে অতীত থেকে ভবিষ্যতের দিকে চলে। কোথাও তার বিরাম নেই, বিশ্রাম নেই। তার গতি চিরচল।

    যে জাতি গতির সাধনা করে সে জাতির যাত্রা হয় পূর্ণতার দিকে, সে জাতি বিরামহীন বিকাশের পথেই যাত্রা করে। কিন্তু কোনাে জাতি যদি তাদের আদর্শের পথ হারিয়ে ফেলে, অজ্ঞানের অন্ধকারে আবদ্ধ থেকে অন্ধ অনুকরণ বা পুরাতন সংস্কারকে আঁকড়ে ধরে, সে জাতি প্রগতির ধারা থেকে বিছিন্ন হয়ে পড়ে। চারদিকের নানা বিপদ ও বিপর্যয় এসে তাদের আঘাত করে। রুদ্ধ হয়ে যায় তার উন্নতির সকল পথ। তখন সে জাতির একরূপ মৃত্যুই হয় বলা যেতে পারে। তখন এ জাতি প্রকৃত উন্নতির পথ ত্যাগ করে শুষ্ক ও জীর্ণ লােকাচারের প্রতি আসক্ত হয়। জাতির চলার পথ শেষ পর্যন্ত একেবারে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে কুসংস্কারের প্রকোপে, লােকাচারের প্রাচুর্যে এবং দেশাচারের যুক্তিহীন | প্রয়োগ। অর্থহীন গোঁড়ামি প্রতি পদে তার উন্নতির অন্তরায় হয়ে ওঠে এবং জাতির অগ্রগতি চিরকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায়, জাতি তখন  বিকৃত ও শাস্ত্রবাণীসর্বস্ব এক জড় পদার্থে পরিণত হয়। প্রাণপণ চেষ্টা ও স্বকীয়তার অনুশীলনের মাধ্যমেই জাতি অনায়াসে পৌছে যতে পারে উন্নতির শীর্ষে, হতে পারে অনুকরণীয় আদর্শ।

    মন্তব্য
    কোনাে দেশের প্রতিটি নাগরিকের প্রকৃত দেশপ্রেম থাকলে  কোনোরূপ  জড়তা বা কুসংস্কার তাদের গ্রাস করতে পারে না।

    0 Comments